শের-ই-বাংলা মেডিকেলে সহকর্মীকে মারধরের অভিযোগে নার্সদের বিক্ষোভ

বরিশাল শের-ই- বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্মরত এক নার্সকে মারধরের অভিযোগ উঠেছে টুরিস্ট পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে হাসপাতালে বিক্ষোভ করেছেন নার্সরা।

বৃহস্পতিবার (১০ মার্চ) সকাল ৯টার দিকে হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন তারা। এ সময় মারধরের ঘটনায় জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিচার দাবিও জানান। পরে হাসপাতালের পরিচালকের আশ্বাসে তারা কাজে ফেরেন।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাত নগরীর রূপাতলী উকিল বাড়ি সড়ক এলাকায় একটি অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় মো. মামুন নামে ট্যুরিস্ট পুলিশের বরিশাল জোনের এক পরিদর্শক আহত হন। তাকে উদ্ধার করে সহকর্মীরা শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। ভর্তি রেজিস্ট্রার খাতায় লেখার জন্য জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ব্রাদার সাইফুল ইসলাম রোগীর নাম-ঠিকানা ও বয়স জানতে চান।

এ সময় ক্ষিপ্ত হয়ে আহত পরিদর্শক মামুনের সঙ্গে থাকা পুলিশের একাধিক সদস্য ও রোগীর স্বজনরা জরুরি বিভাগের টিকিট কাউন্টারে ঢুকে ব্রাদার সাইফুল ইসলামকে মারধর করেন। পরে আহত পুলিশ কর্মকর্তাকে সার্জারি-১ নম্বর ইউনিটে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনা জানাজনি হলে নার্সদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। তারা সকাল ৯টার দিকে হাসপাতালের পরিচালকের কক্ষের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করেন।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত নার্স সাইফুল ইসলামকে পুলিশ সদস্যরা মারধর করেছেন। ভর্তি রেজিস্ট্রারে আহতের নাম-ঠিকানা ও বয়স জানতে চাইলে কয়েকজন ট্যুরিস্ট পুলিশ সদস্য ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে মারধর করেছেন। নার্স সাইফুল ইসলাম তার কর্তব্য পালন করতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছে। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও জড়িত পুলিশ সদস্যদের শাস্তির দাবিতে হাসপাতালের নার্সরা বিক্ষোভ করেছে। পরে হাসপাতাল পরিচালক এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস দিলে নার্সরা কাজে ফেরেন।
আগামী শনিবারের মধ্যে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা না হলে নার্সরা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতিতে যাবে বলেও জানান তিনি।

মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে ট্যুরিস্ট পুলিশের বরিশাল জোনের পুলিশ সুপার রেজাউল করিম বলেন, বুধবার রাতে অ্যাম্বুলেন্সের ধাক্কায় ট্যুরিস্ট পুলিশের পরিদর্শক মো. মামুন আহত হন। তাকে ভর্তির জন্য কয়েকজন পুলিশ সদস্য বরিশাল শের-ই- বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে এক নার্সের সঙ্গে ঝামেলা হয়। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনার প্রমাণ পেলে জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. এইচএম সাইফুল ইসলাম বলেন, ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা হাসপাতালের একজন সিনিয়র স্টাফ নার্সকে মারধর করেছেন। নার্সরা আজ সকালে প্রতিবাদ জানিয়ে বিক্ষোভ করেছেন। এ ঘটনায় ট্যুরিস্ট পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। তারা আশ্বাস দিয়েছেন জড়িত পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন। তাদের আশ্বাসের কারণে নার্সরা কাজে ফিরেছেন। এছাড়া এ ঘটনায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত অভিযোগ দেওয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

ডাব্লিউজি/এইচএ

Leave a Reply